1. admin@prothomctg.com : admin :
বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৫৪ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের নির্বাচন ‘এক ঘোড়ার দৌড়’-দ্য টেলিগ্রাফ

প্রথম চট্টগ্রাম ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০২৩
  • ৩৪ বার পঠিত

বাংলাদেশ তার পরবর্তী সরকার বেছে নিতে দুই সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে নির্বাচন করতে প্রস্তুত। তবুও ভোট দেয়ার আগেই, অনুশীলনের বৈধতা নিয়ে প্রশ্নগুলি দেশের গণতন্ত্রকে অস্থিতিশীল করার হুমকির মুখে দাঁড় করায়। সতর্ক না হলে ভারতও বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির টানাপড়েনে জড়িয়ে যেতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়াজেদের নির্বাচনে জয়ের পথ প্রশস্ত হচ্ছে বলে মনে হচ্ছে। এই জয় হবে বিজয়ীর জন্য বড় ক্ষতির মধ্য দিয়ে। সবচেয়ে বড় বিরোধী শক্তি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ৭ জানুয়ারির নির্বাচন বয়কট করছে, এটাকে ক্ষমতাসীন সরকারের জন্য গণভোটের চেয়ে কিছুটা কম করে দেখা হবে। একই সঙ্গে এটা হবে দেশের গণতন্ত্রের জন্য পরীক্ষা। শেখ হাসিনা ওয়াজেদ ২০০৯ সাল থেকে ক্ষমতায় রয়েছেন এবং সাম্প্রতিক মাসগুলিতে তার শাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ক্রমবর্ধমান মাত্রা ইঙ্গিত করে যে, বাংলাদেশে অনেকেই ২০২৩ সালে একটি অর্থবহ প্রতিদ্বন্দ্বিতা দেখতে পছন্দ করেন। কিন্তু অনেক বিশ্লেষক এখন এই নির্বাচনকে ‘এক ঘোড়ার দৌড়’ বলে মনে করছেন। স্পষ্ট করে বলতে গেলে, বিএনপির ভোট বয়কটের সিদ্ধান্তের পক্ষে তার যুক্তি যাই হোক না কেন- তা বাংলাদেশের গণতন্ত্রের পক্ষে সহায়ক হবে না।

তবে বাংলাদেশের সরকারই জনগণের কাছে সবচেয়ে বেশি জবাবদিহির মুখে।

রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ওপর দমনপীড়ন, বিক্ষোভকারীদের ওপর সহিংস হামলা এবং একাধিক গ্রেপ্তার উদার গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের উজ্বলতাকে ম্লান করেছে। এই গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে আওয়ামী লীগ দীর্ঘদিন ধরে অন্তত আনুষ্ঠানিকভাবে সমর্থন করেছে। ভারত ঐতিহ্যগতভাবে বিএনপির চেয়ে আওয়ামী লীগের সাথে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। কারণ বিএনপি ইসলামপন্থি দল এবং নয়া দিল্লির সমালোচক গ্রুপগুলির সাথে সম্পৃক্ত। অতীতের নির্বাচন থেকে শিক্ষা নিয়ে ভারত সতর্কতা অবলম্বন করেছে, যাতে আওয়ামী লীগের প্রতি প্রকাশ্য সমর্থন অনুধাবন না করা যায়। তবুও, বাংলাদেশে, নয়া দিল্লি ক্ষমতাসীন সরকারের পাশে দাঁড়িয়েছে এমন ধারণা ব্যাপকভাবে বিদ্যমান। ক্ষমতায় থাকা দলের বিরুদ্ধে যদি জনপ্রিয়তা আরও কমে যায় তবে ভারতও সেই প্রভাব অনুভব করবে- যেমনটি দক্ষিণ এশিয়ার অন্যত্র সাম্প্রতিক নির্বাচনে ঘটেছে।

এদিকে, বাংলাদেশে চীনের অর্থনৈতিক প্রভাবও শুধুমাত্র আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে বেড়েছে, তাই হাসিনার ক্ষমতায় ফিরে আসা এই অঞ্চলে তার প্রধান ভূ-রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীর বিরুদ্ধে ভারতের হাতকে শক্তিশালী করবে না। যে পদ্ধতিতে নির্বাচন হচ্ছে তার আনুষ্ঠানিক বিরোধিতা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রের অনুভূতিকে সমর্থন করা উচিত নয় ভারতের জন্য।

যাইহোক, বাংলাদেশে রাজনৈতিক যেকোনো সম্ভাব্য অস্থিরতা থেকে নিজেকে দূরে রাখতে পদক্ষেপ নিতে হবে ভারতকে। বাংলাদেশ নীতি নিয়ে ভারতের জন্য ‘রেড লাইন’ টানার সময় এসে গেছে।

Facebook Comments Box
এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০১৬ প্রথম চট্টগ্রাম। @ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park