1. admin@prothomctg.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৫১ অপরাহ্ন

পোশাক শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি পেতে সহায়তার আহ্বান

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৪ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৭০ বার পঠিত

ন্যূনতম মজুরি ২৩ হাজার টাকা করার দাবিতে সম্প্রতি দেশের গার্মেন্টস শ্রমিকেরা আন্দোলন করছে। এরই মাঝে গত ৩০ অক্টোবর সংঘাতে রাসেল হাওলাদার নামের গাজীপুরের পোশাক কারখানা ডিজাইন এক্সপ্রেস লিমিটেডের এক কর্মীসহ আন্দোলনে এখন পর্যন্ত ৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছে। একইসাথে নানা জায়গায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে বেশ কয়েকবার সংঘর্ষেও জড়িয়েছে গার্মেন্টস কর্মীরা।

ঘটনাটিকে ক্লিন ক্লথ ক্যাম্পেইন (সিসিসি) এর পক্ষ থেকে ‘গার্মেন্টস শ্রমিকদের উপর সহিংস নিপীড়ন’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। একইসাথে চলমান পরিস্থিতির নিন্দা জানিয়েছে অ্যাপারেল লেবার ইউনিয়ন অ্যালায়েন্স হিসেবে কাজ করা এই সংগঠনটি। সিসিসি’র পক্ষ থেকে বলা হয়, বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজিএমইএ) গার্মেন্টস সেক্টরে নতুন ন্যূনতম মজুরি ১০ হাজার ৪০০ টাকা নির্ধারণে প্রস্তাব পেশ করেছে। কিন্তু এটি ট্রেড ইউনিয়নের দাবিকৃত বেতনের প্রায় অর্ধেক।

সিসিসি মনে করে, চলতি বছরের মজুরি বৃদ্ধিতে চলমান আন্দোলনে দমন-পীড়ন ‘অভূতপূর্ব পর্যায়ে’ পৌঁছেছে। যার ধারাবাহিকতায় একাধিক গার্মেন্টস কর্মী নিহত হয়েছে। সংগঠনটি মনে করে, বাংলাদেশ থেকে পোশাক আমদানি করা ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলোর মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে চলমান আন্দোলনে কার্যকরী ভূমিকা পালন করা উচিত। তবে শ্রমিকরা যখন তাদের দাবি আদায়ে সোচ্চার হয়ে জীবনের ঝুঁকি নিচ্ছে আন্দোলন করছে, তখন বাংলাদেশ থেকে পোশাক আমদানি করা ব্র্যান্ডগুলো এই ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছুই বলছে না।

তাই ট্রেড ইউনিয়ন ও সিসিসির পক্ষ থেকে ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলোকে ২৩ হাজার টাকা মাসিক মজুরির শ্রমিকদের দাবির পক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে বিবৃতি প্রদানে আহ্বান করা হয়েছিল। তবে সেই আহ্বান উপেক্ষা করে তারা বিবৃতি প্রদানে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। সিসিসি’র পক্ষ থেকে বলা হয়, ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলো কোড অফ কন্ডাক্ট এবং স্বচ্ছ ও অন্তর্ভুক্তিমূলক মজুরি নির্ধারণ কাঠামোর প্রতি প্রতিশ্রুতিবন্ধ। কিন্তু তা সত্ত্বেও মজুরি নির্ধারণে শ্রমিকদের যে দাবি, সেটিতে কার্যকরী ভূমিকা রাখতে ব্র্যান্ডগুলো ব্যর্থ হয়েছে। ন্যূনতম মজুরির দাবিতে পোশাক শ্রমিকদের আন্দোলনে হওয়া সহিংসতার নিন্দা জানাতে বাংলাদেশ থেকে আমদানি করা সকল পোশাক ব্র্যান্ডের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সিসিসি। একইসাথে ন্যায্য মূল্য নির্ধারণের শ্রমিকদের প্রতিশ্রুতি প্রদান, স্বাধীন ট্রেড ইউনিয়নের দাবি মজুরি বোর্ডের কাছে তুলে ধরা এবং শ্রমিক সংগঠনের স্বাধীনতার অধিকার সুরক্ষিত করতে ব্র্যান্ডগুলোকে সহযোগিতা প্রদানের আহ্বান জানানো হয়।

অন্যদিকে স্পোর্টস জায়ান্ট ব্র্যান্ড এডিডাস, মার্কিন ফ্যাশন ব্র্যান্ড লেভি স্ট্রাউস এন্ড কো এর পক্ষ থেকে গত মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে যৌথভাবে চিঠি পাঠানো হয়। ওই চিঠিতে সমস্ত স্টেকহোল্ডারদের মতামত নিয়ে দেশের অর্থনৈতিক বাস্তবতাকে প্রতিফলিত করে এমন ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণে অনুরোধ করা হয়।

চিঠিতে স্বাক্ষর করা ব্র্যান্ডগুলোর পক্ষ থেকে জানানো হয়, করোনা মহামারী, পরবর্তীতে অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ ও মূল্যস্ফীতি বিবেচনায় শ্রমিকদের কল্যাণ নিশ্চিত করতে একটি চূড়ান্ত বর্ধিত ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ করা উচিত।

অন্যদিকে গত ২৫ অক্টোবর গার্মেন্টস শ্রমিকের প্রস্তাবিত মজুরি নিয়ে ঢাকার সেগুনবাগিচায় ন্যূনতম মজুরি বোর্ডের কার্যালয়ে চতুর্থ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে পোশাক কারখানার মালিকদের পক্ষ থেকে ন্যূনতম মজুরি হিসাবে প্রস্তাবিত পরিমাণের প্রায় অর্ধেক প্রস্তাব করা হয়।

সিসিসির বিবৃতিতে বলা হয়, মালিক পক্ষের কাছ থেকে এত অল্প পরিমাণ মজুরির প্রস্তাব খুবই হতাশাজনক। এক্ষেত্রে মজুরি নির্ধারণ প্রক্রিয়ায় শ্রমিকদের দাবিগুলি আবার উপেক্ষা করা হয়েছে। অথচ বাংলাদেশ শ্রম আইন ও ন্যূতম মজুরি সম্পর্কিত আইএলও কনভেনশন ১৩১ এর অধীনে নির্ধারিত মানদ-ের পূরণের কথা রয়েছে।

সিসিসি আশঙ্কা করছে, মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে পোশাক শ্রমিকদের চলমান আন্দোলন আরও সহিংস আকার ধারণ করতে পারে। কেননা পাঁচ বছর আগেও একই দাবিতে অনুরূপ পরিস্থিতির তৈরি হয়েছিল।

সিসিসির বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা বাংলাদেশ সরকারকে অবিলম্বে শ্রমিকদের বিরুদ্ধে চলমান সহিংসতা বন্ধ করার আহ্বান জানাই। কেননা তাদের বাংলাদেশের আইনে বিক্ষোভ করার অধিকার রয়েছে। পাঁচ বছর আগে একই দাবিতে শ্রমিকদের সাথে যা ঘটেছিল, সেই একই ঘটনা পুনরাবৃত্তি হওয়ার আশঙ্কা করছি।

উল্লেখ্য, গত ৩১ অক্টোবর বিজিএমইয়ের পক্ষ থেকে সদস্যভুক্ত গার্মেন্টস মালিকদের ফ্যাক্টরি বন্ধের নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। এক্ষেত্রে যুক্তি হিসেবে গার্মেন্টস কর্মীদের জীবন ও ফ্যাক্টরির মালামাল রক্ষার বিষয়টিকে উল্লেখ করা হয়। কেননা এই ঘটনার জেরেই সম্প্রতি ৩ গার্মেন্টস কর্মী নিহত হয়েছে এবং একটি ফ্যাক্টরিতে আগুন দেয়া হয়েছে।

Facebook Comments Box
এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০১৬ প্রথম চট্টগ্রাম। @ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park