1. admin@prothomctg.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:১৩ অপরাহ্ন

বাংলাদেশে মানবাধিকার ও আইনের শাসনের সমস্যাগুলি আলোচনা হবে

প্রথম চট্টগ্রাম ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ২৯ বার পঠিত

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ জি-২০ সম্মেলনে যোগ দিতে ভারত সফর করবেন আগামী ৯ থেকে ১০ ডিসেম্বর। এরপর সেখান থেকে ১০ সেপ্টেম্বর তিনি ঢাকা সফরে আসবেন। এই সফরকে সামনে রেখে একটি আনুষ্ঠানিক সংবাদ বিবৃতি প্রকাশ করেছে ফ্রান্সের সরকারী দপ্তর, যেখানে প্রেসিডেন্ট ম্যাখোঁর বাংলাদেশ সফর জরুরি মানবাধিকার এবং আইনের শাসনের সমস্যাগুলিতে আলোকপাত করছে। ৫ সেপ্টেম্বর প্যারিস থেকে প্রকাশিত বিবৃতিটি তুলে ধরা হল:

ফ্রান্সকে অবশ্যই কথা বলতে হবে এবং রাজনৈতিক শাসন ও নিরাপত্তা বাহিনীর দ্বারা নিপীড়িত সংগ্রামী বাংলাদেশী নাগরিক সমাজের সাথে দাঁড়াতে হবে। মানবাধিকার সংক্রান্ত আইনজীবী এবং সংস্থাগুলি ফ্রান্সকে তার নীরবতা ভাঙার জন্য এবং রাজনৈতিক শাসন ও নিরাপত্তা পরিষেবা দ্বারা মারাত্মকভাবে প্রভাবিত বাংলাদেশী নাগরিক সমাজের প্রতি সমর্থন বাড়ানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছে।

প্রেসিডেন্ট ম্যাখোঁর সফরটি পূর্ববর্তী নির্বাচনকালীন সময়ের মধ্যে ঘটছে, যেখানে ২০২৪ সালের ৮ জানুয়ারীর নির্ধারিত সংসদীয় নির্বাচনে জাতীয় পরিষদের (জাতীয় সংসদ) সদস্যরা নির্বাচিত হবেন। দু:খজনকভাবে, এই প্রাক-নির্বাচন পর্বটি স্থানীয় রাজনৈতিক সহিংসতা এবং রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ ও ভিন্নমতাবলম্বীদের লক্ষ্য করে ক্রমবর্ধমান সংখ্যক গ্রেপ্তারের কারণে প্রতিকূল রয়ে গেছে।

যদিও বাংলাদেশ বেশ কয়েকটি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় ইতিবাচক ফলাফল অর্জন করেছে, তবে এটি সামষ্টিক ও ব্যক্তি স্বাধীনতা, মৌলিক অধিকার এবং আইনের শাসনের ক্ষেত্রে গুরুতর চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী, ব্লগার এবং চিন্তাবিদদের ওপর বিধিনিষেধমূলক আইনি পদক্ষেপের মাধ্যমে স্বেচ্ছা-নিষেধ বাধ্যতামূলক করাতে মত প্রকাশের স্বাধীনতা ক্রমাগত হুমকির মধ্যে রয়েছে। ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন দ্বারা সক্ষম সরকারের ব্যাপক নজরদারি প্রচেষ্টা সুশীল সমাজকে আরও সংকুচিত করছে।

২০২৩ সালের শুরু থেকেু দুইজন সাংবাদিক দায়িত্ব পালনকালে প্রাণ হারিয়েছেন এবং বর্তমানে ছয়জন কারাবন্দী। বাংলাদেশে ২হাজারেরও বেশি ব্যক্তি মৃত্যুদ-ের সম্মুখীন হয়েছেন, চলতি বছরের শুরু থেকে একটি উদ্বেগজনক -অন্তত- ২শ’ ১৫টি দ-াদেশের রেকর্ড হয়েছে, যা দিন প্রতি প্রায় একটি মৃত্যুদ-ের সমান। প্রমাণ সংগ্রহের জন্য নির্যাতন একটি প্রচলিত বাহন হিসাবে রয়ে গেছে এবং বাংলাদেশে কারাগারগুলির অবস্থা ভয়াবহ, যার ফলে স্বাস্থ্যসেবা ও স্বাস্থ্যকর্মীদের অপর্যাপ্ত প্রবেশে অসংখ্য বন্দীর মৃত্যু হয়।

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের অধীনে পরিচালিত এনজিওগুলির (এনওএবি) জন্য নিয়োজিত কার্যালয় কর্তৃক হুমকির মুখে সংগঠনগুলির স্বাধীনতা খুব কমই টিকে আছে। এই কার্যালয় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক এনজিওগুলিকে নিয়মিতভাবে প্রশাসনিক ও বিচারিক হয়রানির শিকার বানায়, তাদের কার্যক্রমকে পঙ্গু করে দেয়। উল্লেখযোগ্যভাবে, অধিকার-এর মতো সংগঠনগুলি, যারা বলপূর্বক গুম এবং বিচারবহির্ভূত হত্যা মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ, তারা ২০২২ সালের জুন মাসে বাংলাদেশী প্রশাসন কর্তৃক তাদের নিবন্ধন প্রত্যাহার সহ উল্লেখযোগ্য বাধার সম্মুখীন হয়েছে।
বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ বিপরীত প্রতিবেদনগুলি সত্ত্বেও বলপূর্বক গুমের অস্তিত্ব অস্বীকার করে চলেছে। অধিকার-এর মতে, ২০১৮ থেকে ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে ২শ’ ২৩ জন লোককে জোরপূর্বক গুম করা হয়েছে, এমন একটি সত্য যা মৌলিক অধিকারের উপর জাতিসংঘের পর্যালোচনার সময়ও উপেক্ষা করা হয়েছে। নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা ব্যাপকভাবে রয়ে গেছে, বিচার ব্যবস্থা কার্যকরভাবে প্রতিক্রিয়া জানাতে সংগ্রাম করছে। বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থায় লাখ লাখ মামলা বিচারাধীন, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা প্রায়শই তাদের ফায়দার জন্য এটিকে কাজে লাগান।

ধর্মীয়, জাতিগত এবং লিঙ্গগত সংখ্যালঘুরা বাংলাদেশী সমাজের উগ্রবাদী উপাদানগুলির আক্রমণের ক্রমাগত ভয়ের মধ্যে বাস করে, প্রায়শই পুলিশ বা নিরাপত্তা পরিষেবা সুরক্ষা ছাড়াই। পার্বত্য চট্টগ্রামের জাতিগত সংখ্যালঘুদের অবস্থা অস্বচ্ছ এবং উদ্বেগজনক, কারণ এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক প্রকল্পগুলি এই সম্প্রদায়ের অধিকারকে হুমকির মুখে ফেলেছে। বার্মা থেকে আসা ১১লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীকে অভ্যর্থনা ১৭কোটি ১০লাখ বাংলাদেশী নাগরিকের বর্তমান মানবাধিকার পরিস্থিতিকে ছাপিয়ে যাবে না।

পরবর্তী বাংলাদেশী নির্বাচন ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে ফ্রান্সকে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে, ফ্রান্স ২০২৩ সালের নভেম্বরের প্রথম দিকে জেনেভায় আসন্ন ইউনিভার্সাল পিরিওডিক রিভিউতে (ইউপিআর) জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিটির কাছে সুপারিশ পেশ করবে। ফ্রান্স অবশ্যই নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকারের জন্য জোরালোভাবে সমর্থন দেবে, বিশেষ করে মানবাধিকার রক্ষকদের রক্ষা করা, সংঘের স্বাধীনতার প্রতি সম্মান এবং জোরপূর্বক বা অনিচ্ছাকৃত গুমের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের উপর জোর দেবে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নে দ্বিতীয় বৃহত্তম পোশাক রপ্তানিকারক হিসেবে বাংলাদেশের মর্যাদার প্রেক্ষিতে ফ্রান্স ও বাংলাদেশের মধ্যে যে কোনো বাণিজ্য চুক্তিতে বাংলাদেশের ব্যক্তি ও সামষ্টিক স্বাধীনতার প্রতি শ্রদ্ধাশীল বাণিজ্যের শর্ত অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। ফ্রেঞ্চ ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি (এএফডি) বাংলাদেশে ন্যায়বিচার, আইনের শাসন এবং নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার সহ মৌলিক অধিকার খাতকে সমর্থন করার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

এটি ডিসেম্বর ২০১৮ সালে গৃহীত ফ্রান্সের ‘মানবাধিকার ও উন্নয়ন’ কৌশলের সাথে জোটবদ্ধ, যা বাংলাদেশে ফরাসি কর্তৃপক্ষের দ্বারা অনেকাংশে অনারোপিত রয়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন এক বছরেরও বেশি সময় ধরে মৌলিক অধিকারের সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষের ওপর চাপ বাড়াচ্ছে। ফ্রান্সকে কালক্ষেপন না করে এই বৈশ্বিক প্রচেষ্টায় যোগ দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

Facebook Comments Box
এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০১৬ প্রথম চট্টগ্রাম। @ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park